উচ্চ হর্ণ বাজানোর দায়ে ১১ জনকে জরিমানা

উচ্চ হর্ণ বাজানোর দায়ে ১১ জনকে জরিমানা

ডেস্ক রিপোর্টঃ

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরির্তন মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন পরিবেশ অধিদপ্তর কর্তৃক পরিচালিত “শব্দদূষণ নিয়ন্ত্রণে সমন্বিত ও অংশিদারিত্বমূলক প্রকল্প” এর তত্ত্বাবধানে শব্দদূষণ নিয়ন্ত্রণে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে অদ্য ১৭/০৫/২০২২ তারিখ মঙ্গলবার গুলশান- ১ নং গোলচত্বর এলাকায় সকাল ১১:০০ টা থেকে বিকাল ৪.০০ টা পর্যন্ত ক্যাম্পেইন এবং মোবাইলকোর্ট পরিচালনা করা হয়।

শব্দদূষণের ফলে সাধারণ মানুষের জীবনমানের উপর নানা ধরণের ক্ষতিকারক প্রভাব রয়েছে, সেগুলো সম্পর্কে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সাধারণ কমিউনিটিকে উদ্বুদ্ধ করার মাধ্যমে সামাজিক আন্দোলন তৈরি করাই হল এই ক্যাম্পেইন ও মোবাইল কোর্টের মূল উদ্দেশ্য।

পরিবেশ অধিদপ্তরের সুজোগ্য মহাপরিচালক মহোদয়ের নির্দেশনায় ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে জনসচেতনতা সৃষ্টির কর্যক্রম চলছে।

আজকের এই ক্যাম্পেইন এবং মোবাইলকোর্ট পরিচালনার মাধ্যমে বর্ণিত এলাকায় যাতায়াতরত যানবাহনের চালক, যাত্রী ও পথচারীসহ অত্র এলাকার জনসাধারণকে শব্দদূষণের ক্ষতিকর বিভিন্ন দিক সম্পর্কে সচেতন করার জন্য লিফলেট বিতরণ করা হয়।

উক্ত কার্যক্রমে পরিবেশ অধিদপ্তরের মনিটরিং ও এনফোর্সমেন্ট শাখার পক্ষ থেকে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার মাধ্যমে উচ্চ শব্দের হর্ণ বাজানো থেকে বিরত থাকার জন্য বিভিন্ন ধরণের যানবাহনের চালকদের শতর্ক করার পাশাপাশি ১১ (এগারো) জনকে ৭,৪০০.০০ (সাত হাজার চারশত) টাকা জরিমানা ৩০ (ত্রিশ) জনকে শতর্ক করার পাশাপাশি শব্দদূষণ সৃষ্টিকারি উচ্চ শব্দের ০৮ (আট) টি অবৈধ হর্ণ খুলে ফেলা হয়।

উল্লেখ্য উক্ত ক্যাম্পেইন কার্যক্রমে পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারিদের পাশাপাশি গুলশান সোসাইটির সেচ্ছাসেবক দল এবং বাংলাদেশ স্কাউটস্ ও বিএনসিসি লিফ্লেট বিতরণসহ ক্যাম্পেইন কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেন।

পরিবেশ অধিদপ্তরের মনিটরিং ও এনফোর্সমেন্ট শাখার পক্ষ থেকে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার মাধ্যমে জনসাধারণকে শব্দদূষণের ক্ষতিকর বিভিন্ন দিক সম্পর্কে গাড়িচালকসহ সাধারণ জনগণকে সচেতন করা হয়।

-শিশির

Print Friendly, PDF & Email
FacebookTwitter