স্বাস্থ্যঃ
বিশ্ব হার্ট দিবস ২০২২ উদযাপন উপলক্ষ্যে একটি পেশেন্ট ফোরাম ও সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করেছে দেশের প্রথম জেসিআই স্বীকৃত হাসপাতাল, এভারকেয়ার হসপিটাল ঢাকা।

এবারের হার্ট দিবসের প্রতিপাদ্য ‘হৃদয় দিয়ে প্রতিটি হার্টের যত্ন নিন’। সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা এবারের প্রতিপাদ্য বিষয়বস্তু নিয়ে আলোচনা, মতামত ও অভিজ্ঞতা বিনিময় করেন।

কার্ডিওভাস্কুলার রোগে বিশ্বব্যাপি প্রতিবছর প্রায় ১৮.৭ মিলিয়ন (১ কোটি ৮৭ লক্ষ) মানুষ মৃত্যুবরণ করে।

হার্টের সুস্থতা ও কার্ডিওভাস্কুলার রোগ সম্পর্কে জনমনে সচেতনতা বৃদ্ধি করতেই এই আয়োজন করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন এভারকেয়ার হসপিটাল ঢাকা’র ক্লিনিক্যাল ও ইন্টারভেনশনাল কার্ডিওলজি বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট অধ্যাপক ডা. মো: শাহাবউদ্দিন তালুকদার; ক্লিনিক্যাল ও ইন্টারভেনশনাল কার্ডিওলজি বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. শামস মুনওয়ার; ক্লিনিক্যাল ও ইন্টারভেনশনাল কার্ডিওলজি বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট অধ্যাপক ডা. তামজীদ আহমেদ; হার্ট ফেইলিওর ও অ্যারিদমিয়া ইউনিট এর সিনিয়র কনসালটেন্ট অধ্যাপক ডা. মো: আতাহার আলী; ক্লিনিক্যাল ও ইন্টারভেনশনাল পেডিয়াট্রিক কার্ডিওলজি বিভাগের কনসালটেন্ট ও কোঅর্ডিনেটর ডা. তাহেরা নাজনীন; কার্ডিওথোরাসিস ও ভাস্কুলার সার্জারীর সিনিয়র কনসালটেন্ট ও কোঅর্ডিনেটর ডা. সোহেল আহমেদ; কার্ডিওভাস্কুলার ও থোরাসিস সার্জারী সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. মো: জুলফিকার হায়দার প্রমুখ।

অধ্যাপক ডা. মো: শাহাবউদ্দিন তালুকদার, সিনিয়র কনসালটেন্ট, ক্লিনিক্যাল ও ইন্টারভেনশনাল কার্ডিওলজি বলেন, “আমাদের শরীরে কোনো রোগ সনাক্ত হওয়ার পর চিকিৎসার নানা সুযোগ থাকলেও জীবনযাত্রা আগের মতো স্বাভাবিক না থাকার ঝুঁকি থেকে যায়।

বিশেষ করে হৃদরোগের ক্ষেত্রে। তাই সময় থাকতেই হার্টের সুস্থতা নিশ্চিতে সকলের উচিৎ নিয়মিত মেডিকেল চেকআপ এবং চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করা।

সকলের উদ্দেশ্যে আমার আহ্বান, আপনারা সুস্থ ও স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় অভ্যস্ত হয়ে উঠুন এবং হার্টের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ দিকগুলো এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন।”

এভারকেয়ার হসপিটাল ঢাকা’র মেডিকেল সার্ভিসেস-এর ডিরেক্টর ডা. আরিফ মাহমুদ বলেন, “আমরা বিশ্বাস করি পৃথিবীর প্রতিটি হার্টবিটই ভিন্ন এবং তাদের সেবার প্রয়োজনগুলোও ভিন্ন। সেই বিশ্বাস থেকেই আমরা প্রতিটি কার্ডিয়াক রোগীর বিশেষ যত্ন, সুস্থতা ও আস্থা অর্জনে নিরলস প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখি। এভারকেয়ার হসপিটাল ঢাকা দেশের মাটিতে দিচ্ছে বিশ্বমানের কম্প্রিহেনসিভ কার্ডিয়াক-কেয়ার।

আমাদের রয়েছে ক্লিনিক্যাল অ্যান্ড ইন্টারভেনশনাল কার্ডিওলজি; কার্ডিওথোরাসিক অ্যান্ড ভাস্কুলার সার্জারি; ক্লিনিক্যাল অ্যান্ড ইন্টারভেনশনাল পেডিয়াট্রিক কার্ডিওলজি, হার্ট ফেইলিওর অ্যান্ড অ্যারিদমিয়া ইউনিট-এর মতো বিশ্বমানের চিকিৎসা ব্যবস্থা।

তাই সকলের প্রতি আমার আহ্বান হার্টের প্রতি যত্নশীল হোন, যেকোনো প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন এবং উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে না গিয়ে আমাদের প্রতি আস্থা রাখুন।”

হার্ট ফেইলিওর ও অ্যারিদমিয়া ইউনিট এর সিনিয়র কনসালটেন্ট অধ্যাপক ডা. মো: আতাহার আলী বলেন, “সাধারণ জ্ঞান ও সচেতনতার মাধ্যমে হার্ট ফেইলিওরের মতো জটিলতা প্রতিরোধ করা সম্ভব। তাই কোন উপসর্গকেই অবহেলা না করে চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণের মাধ্যমে হার্টের সুস্থতা নিশ্চিত করা সম্ভব বলে আমি মনে করি।”

এভারকেয়ার হসপিটাল ঢাকা’র শিশু হৃদরোগ বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট ও কোঅর্ডিনেটর ডা. তাহেরা নাজরীন বলেন, “শিশুদের হৃদরোগ বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধিতে আমাদের সংঘবদ্ধভাবে কাজ করে যেতে হবে।

শিশু হৃদরোগ চিকিৎসাযোগ্য ও প্রতিরোধযোগ্য এভারকেয়ার পেডিয়াট্রিক কার্ডিওলজি বিভাগে আমরা প্রদান করছি সকল প্রকারের সেবা।”

কার্ডিওথোরাসিস ও ভাস্কুলার সার্জারীর সিনিয়র কনসালটেন্ট ও কোঅর্ডিনেটর ডা. সোহেল আহমেদ বলেন, “আমরা মনের অজান্তেই দেহের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গটির যত্নে অবহেলা করি। তাই হার্টের যত্নে আমাদের আরও সচেতন হতে হবে।

একইসাথে দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থাকে আরও সমৃদ্ধ করতে আস্থা বজায় রাখতে হবে এবং বিদেশ যাওয়ার প্রবণতা কমাতে হবে বলে আমি মনে করি।”

-শিশির

Print Friendly, PDF & Email
FacebookTwitter