দুস্থদের মাঝে ইফতার করেছে এরিনা অফ ভ্যালর

দুস্থদের মাঝে ইফতার করেছে এরিনা অফ ভ্যালর

বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তিঃ

বিখ্যাত ও জনপ্রিয় মাল্টিপ্লেয়ার অনলাইন ব্যাটল এরিনা গেইম, এরিনা অফ ভ্যালর, বাংলাদেশ সম্প্রতি ঢাকার মিরপুর ও খুলনায় গেমার ও ইস্পোর্টস খেলোয়াড়দের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে দরিদ্র ও দুস্থদের মাঝে ইফতার বিতরণ কর্মসূচি আয়োজন করেছে৷

এই কর্মসূচিতে গেমিং এবং ইস্পোর্টস কমিউনিটির সদস্যরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে অভাবী মানুষদের মাঝে ইফতার বিতরণে অংশ নেয়, যা প্রকৃতপক্ষে গেমাররা আত্মকেন্দ্রিক ও শুধুমাত্র নিজের ভুবনে বসবাস করে- এই ভুল ধারনাটি ভেঙে দিয়েছে।

এই পবিত্র রমজান মাসে সুবিধাবঞ্চিত গরীব-দুঃখী মানুষেরা রোজা পালন করতে সবচেয়ে বেশি কষ্টের সম্মুখীন হয়। আবার মহামারী পরবর্তী অর্থনৈতিক দুরবস্থার কারণে এই পরিস্থিতি এখন আরো সঙ্গীন।

এমতাবস্থায়, এরিনা অফ ভ্যালর বাংলাদেশ টিম এই সকল বিষয় বিবেচনা করে এমন একটি চমৎকার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। তারা ঢাকা ও খুলনায় ইফতার বিতরণ কর্মসূচির আওতায় দুস্থ মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ করেছে।

এইদিনে তরুণ ও উৎসাহী গেমার ও ইস্পোর্টস খেলোয়াড়দের সাথে এরিনা অফ ভ্যালর বাংলাদেশ – এর পক্ষ থেকে কান্ট্রি হেড আরাফাত হোসেন উপস্থিত ছিলেন। তারা সকলে মিলে অত্যন্ত উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে কর্মসূচিটি পালন করেন।

এরিনা অফ ভ্যালর – এর কান্ট্রি হেড আরাফাত হোসেন এই সফল কর্মসূচির আয়োজনের ব্যাপারে তাঁর সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ” এই পবিত্র রমজান মাসে আমাদের সকলেরই দেশের ক্ষুধা ও দারিদ্র্য পীড়িত ও সুবিধাবঞ্চিত জনগণের প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়া উচিত এবং এ ব্যাপারে আমাদের সবার ভূমিকা রাখা উচিত। এ মাসে রোজা রেখে আমরা অনুধাবন করতে পারি ক্ষুধার যন্ত্রণা কত ভয়াবহ হতে পারে। এরিনা অফ ভ্যালর বাংলাদেশ সবসময় সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা অনুভব করে এবং আজকের ইফতার বিতরণ কর্মসূচির মাধ্যমে আমাদের প্রতিষ্ঠানের এ ব্যাপারে মনোভাব ও অবস্থানটি প্রকাশ পেল। দেশের গেমার ও ইস্পোর্টস খেলোয়াড়েরা যে সমাজের প্রতি কর্তব্য পালনে নিষ্ঠাবান, এই ইফতার বিতরণ কর্মসূচিটি তার একটি উৎকৃষ্ট উদাহরণ। “

সম্প্রতি, ২০২২ সালের এপ্রিল মাসে এরিনা অফ ভ্যালর বাংলাদেশ এ বছর এ আই সি সাউথ এশিয়া কোয়ালিফায়ার্স ২০২২ অত্যন্ত সফলভাবে আয়োজন করেছিল। এই প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ সাউথ এশিয়া পর্যায়ে এত বড় এবং সম্মানজনক একটি ইস্পোর্টস টুর্নামেন্ট আয়োজন করার সৌভাগ্য অর্জন করলো। এই অত্যন্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ টুর্নামেন্টে বিশাল অংকের মোট পুরস্কার দেওয়া হয়েছিল এবং বাংলাদেশের একটি টিম প্রথম রানার আপ হয়েছিল যা আমাদের জন্য একটি বড় অর্জন।

-শিশির

Print Friendly, PDF & Email
FacebookTwitter