শিশির মোজাম্মেলঃ

আগামী ২৬শে এপ্রিল বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো শুরু হচ্ছে বিশ্বের জনপ্রিয় বিজনেস রিয়ালিটি শো ‘শার্ক ট্যাংক বাংলাদেশ’।

বহুল প্রতীক্ষিত এই শো-টি দেখা যাবে প্রতি শুক্রবার রাত ১০টায় দেশের সবচেয়ে বড় ভিডিও স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম বঙ্গ ও দীপ্ত টিভি-তে।

গতকাল রাজধানীর তাজউদ্দিন সড়কে অবস্থিত হলিডে ইন-এ একটি সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই তথ্য জানানো হয়।

আলোচ্য এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন শার্ক ট্যাংক বাংলাদেশ-এর সম্মানিত বিচারকমন্ডলী তথা শার্ক, রবি আর ভেঞ্চারের সিইও জনাব কাজী মাহবুব হাসান, স্টার্টআপ বাংলাদেশের প্রধান জনাব সামি আহমেদ, বিডিজবস এর প্রধান জনাব ফাহিম মাশরুর, অ্যাডকম হোল্ডিং গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাম নাজিম ফারহান চৌধুরি, এনচান্টেড ইভেন্টস অ্যান্ড প্রিন্টস-এর সিইও এবং প্রতিষ্ঠাতা সাওসান খান মঈন, গালা মেকওভার স্টুডিও ও স্যালন-এর প্রতিষ্ঠাতা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাভিন আহমেদ, ম্যাজেস্টো লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রাক্তন ব্যবস্থাপনা পরিচালক, ওয়ালটন জনাব গোলাম মুর্শেদ ও বিগ্লোবাল-এর সিইও স্যামুয়েল ব্রিজফিল্ড। ছিলেন বঙ্গ-এর সিইও জনাব আহাদ মোহাম্মদ ভাই, সিওও জনাব ফায়াজ তাহেরসহ শার্ক ট্যাংক বাংলাদেশের সকল পার্টনাররা।

দিনব্যপী এই অনুষ্ঠানে শার্ক ট্যাংক বাংলাদেশ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। “শার্ক ট্যাংক” সম্ভাবনাময় উদ্যোক্তাদের তাদের ব্যবসায়িক ধারণা বিনিয়োগকারীদের একটি প্যানেলের কাছে উপস্থাপন করতে দেয়, যারা “শার্ক” নামে পরিচিত।

তারা বিজনেসটিকে পছন্দ করলে উদ্যোক্তাদের সাথে একটি চুক্তির মাধ্যমে নগদ অর্থ প্রদান করেন। কোনো উদ্যোক্তার কাছে যদি একটি নতুন পণ্যের প্রোটোটাইপ অথবা একটি বিদ্যমান পণ্য বা পরিষেবা, অথবা ব্যবসা বৃদ্ধির পরিকল্পনা থাকে তাহলে তাদের ধারণায় বিনিয়োগ করার জন্য পাঁচজন “শার্ক”কে রাজি করাতে হবে।

২০০১ সালে জাপানে নিপ্পন টিভিতে “মানি টাইগারস” হিসাবে চালু হওয়ার পর থেকে, এই ফরম্যাটটি বিশ্বব্যাপী একটি অভূতপূর্ব সাফল্যে পরিণত হয় এবং প্রতিটি মহাদেশে কখনো “ড্রাগন’স ডেন”, কখনো “লায়নস ডেন” সহ বিভিন্ন নামে অনুষ্ঠিত হয়।

“শার্ক ট্যাংক”-এর এই ফরম্যাটে ড্রাগন, লায়নস কিংবা শার্ক নামে উক্ত দেশের বিপুল সফল উদ্যোক্তারা নিজেরাই প্রায় ১ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছেন, যা কয়েক ডজন কোম্পানিকে উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেতে সক্ষম করেছে।

“শার্ক” ইকোসিস্টেমে যোগদানকারী উদ্যোক্তারা ব্যাপক প্রবৃদ্ধি দেখেছেন। ডিল পাওয়ার পরে এবং শো-তে প্রদর্শিত হওয়ার পরে বিলিয়ন ডলারের সেল তৈরি করেছেন।

প্রায় ২০০০টিরও বেশি কোম্পানি যাচাই বাছাই করার পরে অবশেষে বহুল প্রত্যাশিত এই শো-টি আগামী ২৬শে এপ্রিল রাত ১০টা থেকে প্রতি শুক্রবার বঙ্গ-তে ও দীপ্ত টিভিতে একসাথে সম্প্রচারিত হতে যাচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে বঙ্গ-এর সিইও জনাব আহাদ মোহাম্মদ ভাই বলেন, “এক দশকেরও বেশি সময় ধরে শার্ক ট্যাংক আমার প্রিয় একটি শো।

বাংলাদেশ একটি উদ্যোক্তা-ভিত্তিক ও সম্পদশালী দেশ এবং একজন গর্বিত বাংলাদেশি হিসেবে আমি মনে করি এই শো’টি আমাদের জীবনযাত্রার মান উন্নত করার পাশাপাশি বিনোদন প্রদানের একটি যথাযোগ্য প্ল্যাটফর্ম। বাংলাদেশে ‘শার্ক ট্যাংক’ আনতে পেরে আমরা অত্যন্ত গর্বিত এবং উচ্ছ্বসিত।”

রবি’র হেড অফ মার্কেটিং অ্যান্ড কমিউনিকেশনস শামীম উজ জামান বলেন, “আমাদের দেশের সকল সম্ভাবনাময় উদ্যোক্তাদের উদ্দেশ্যে আমি শুধু একটা কথাই বলতে চাই। আপনারা সবাই আমাদের রবি’র ট্যাগলাইন “বিশ্বাস করুন আপনি পারবেন”-এ বিশ্বাস রাখুন। আপনার বিজনেস আইডিয়ার প্রতি যদি আপনার অবিচল বিশ্বাস ও সংকল্প থাকে, তাহলে আপনি নিশ্চয়ই সফল হবেন।”

জয়তি সিং, ট্যালি সলিউশনের চিফ মার্কেটিং অফিসার তার উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে বলেন, “ট্যালি সল্যুশনস, শার্ক ট্যাংক বাংলাদেশের সাথে অংশীদারিত্ব করতে পেরে আনন্দিত। আশা করছি আপনাদের সবার মতো আমরাও অসামান্য কিছু ব্যবসা এবং উদ্যোক্তাদের অনুপ্রেরণামূলক যাত্রা দেখতে পাবো। ট্যালি-তে, আমরা সর্বদা ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসা এবং এর উদ্যোক্তাদের সমর্থন করে এসেছি।। শার্ক ট্যাংকের সাথে এই পার্টনারশিপ বাংলাদেশের উদ্যোক্তা এবং স্টার্টআপ সম্প্রদায়ের প্রতি আমাদের দীর্ঘস্থায়ী অঙ্গীকারের আরেকটি প্রমাণ।”

প্রাইম ব্যাংক-এর কনজিউমার ব্যাংকিং ডিভিশনের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজিম এ.চৌধুরী বলেন, “শার্ক ট্যাঙ্কের সাথে এই যাত্রার অংশ হতে পেরে আমরা আনন্দিত। প্রাইম ব্যাংকে আমাদের ব্যাংকিং সিস্টেমে আমরা সবসময়ই উদ্যোক্তাদের সক্ষমতা এবং তাদের স্বপ্ন ও সম্ভাবনাকে উপলব্ধি করতে সাহায্য করায় বিশ্বাসী!”

বাংলাদেশে সর্বপ্রথমবারের মতো হতে চলা এই বিশ্ব বিখ্যাত শো-এর “টাইটেল স্পন্সর” হিসেবে রবি, “পাওয়ারড বাই স্পন্সর” হিসেবে স্টার্টআপ বাংলাদেশ, “ব্যাংকিং পার্টনার” হিসেবে প্রাইম ব্যাংক, “কো-স্পন্সর” হিসেবে ট্যালি সলুশনস, “স্ন্যাকস পার্টনার” হিসেবে অলিম্পিক ফুডি ইন্সট্যান্ট নুডলস, “বেভারেজ পার্টনার” হিসেবে সানকুইক, “ওয়ারড্রোব পার্টনার” হিসেবে ইয়োলো বাই বেক্সিমকো, “স্টাইল পার্টনার” হিসেবে ক্লথ স্টুডিও, “গিফট পার্টনার” হিসেবে মিনিসো, “হসপিটালিটি পার্টনার” হিসেবে হলিডে ইন, “সিকিউরিটি পার্টনার” হিসেবে ইউরো ভিজিল সিকিউরিটি সার্ভিস, “ফটোগ্রাফি পার্টনার” হিসেবে র এক্সপোজার, “ব্যাক স্টোরি পার্টনার” হিসেবে লাইভ টু ওয়েব, “রেস্টুরেন্ট পার্টনার” হিসেবে চাওস এবং “পিআর পার্টনার” হিসেবে রয়েছে কনসিটো। অনুষ্ঠান তৈরিতে সহায়তা করেছে রেড ডট কমিউনিকেশন। অনুষ্ঠানটি সম্প্রচারিত হবে বঙ্গ ও দীপ্ত টিভি-তে।

-শিশির

Print Friendly, PDF & Email
FacebookTwitter