সারাদেশে গড়বো আমজাদ হোসেন চর্চা কেন্দ্র

বিনোদনঃ
প্রয়াত কিংবদন্তি নির্মাতা আমজাদ হোসেনকে তার সৃষ্টির মধ্য দিয়েই স্মরণ করতে হবে। আর এজন্যই সারাদেশে গড়ে তোলা হবে আমজাদ হোসেন চর্চা কেন্দ্র। এমনটাই জানালেন তার বড় ছেলে গোলাম সোহরাব দোদুল।

শুক্রবার বিকেলে প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে আমজাদ হোসেনের স্মরণসভার আয়োজন করে জামালপুর সামাজিক-সাংস্কৃতিক পরিষদ।

সেখানে উপস্থিত থেকে দোদুল বলেন, সারা দেশে ছড়িয়ে দেওয়া হবে আমজাদ হোসেন চর্চা কেন্দ্র। নিজ উপার্জিত অর্থে এই চর্চা প্রতিষ্ঠা করবো।

তিনি বলেন, আমার বাবা একটি ইন্সটিটিউশনের মতো। তার কর্মজীবন, সাহিত্য নির্ভর ছবি, শোষিত মানুষের পক্ষে বলিষ্ঠ প্রতিবাদের ভাষা সবকিছুই এই চর্চা কেন্দ্র থেকে জানতে পারবে এখনকার প্রজন্ম।

আগামী ফেব্রুয়ারি অথবা মার্চ মাস থেকে তিনদিন অথবা সাত দিনব্যাপী আমজাদ হোসেন মেলার আয়োজন করবেন বলে জানান দোদুল। শুধু তাই নয়, আমজাদ হোসেনের লেখা শেষ উপন্যাস উঠান প্রকাশ হবে।

এই উপন্যাসের পাণ্ডুলিপি সংরক্ষণ করেছেন আমজাদ হোসেনের কনিষ্ঠ পুত্র সোহেল আরমান। তিনি জানান, বইটি প্রথমা প্রকাশনী থেকে প্রকাশ পাবে।

আমজাদ হোসেনকে নিয়ে এই স্মরণ সভায় উপস্থিত ছিলেন প্রবীন অভিনেতা হাসান ইমাম, নির্মাতা মসিহউদ্দিন শাকের, এমপি ও চিত্রনায়ক ফারুক, আমজাদ হোসেনের স্ত্রী সুরাইয়া চৌধুরী, অভিনেত্রী রোকেয়া প্রাচী, নির্মাতা এস এ হক অলিক, মুশফিকুর রহমান গুলজারসহ বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের সামাজিক ও সাংস্কৃতিক পরিষদের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এসময় আমজাদ হোসেনের পরিবারের পক্ষ থেকে তার চিকিৎসায় সহায়তার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। মারা যাওয়া পর মরদেহ দেশে আনার জন্য সার্বিক সহায়তার জন্য চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর ও বার্তা প্রধান শাইখ সিরাজের কাছেও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা হয়।

ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ১৪ ডিসেম্বর আমজাদ হোসেন মারা যান। এরপর জামালপুর শহরে তার বাবা-মায়ের কবরের পাশে সমাহিত করা হয় এই নির্মাতাকে।

-আরবি

Print Friendly, PDF & Email