বিদেশি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন না দেখালে ৫শ কোটি টাকা আয় বাড়বে

গণমাধ্যমঃ

বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী ডাউন লিংক করে সম্প্রচারিত বিদেশি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন দেখানো দণ্ডনীয় অপরাধ।

শুধু এ–সংক্রান্ত আইন যথাযথভাবে মানা হলে বছরে দেশে ৫০০ কোটি টাকার রাজস্ব বাড়বে। বললেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

আজ শনিবার রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে এক গোলটেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী ডাউন লিংক করে সম্প্রচারিত বিদেশি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন দেখানো দণ্ডনীয় অপরাধ। শুধু এ–সংক্রান্ত আইন যথাযথভাবে মানা হলে বছরে দেশে ৫০০ কোটি টাকার রাজস্ব বাড়বে। বললেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

আজ শনিবার রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে এক গোলটেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যেই আমরা দুই বার পরিপত্র জারি করেছি। এটি আগামী ১ এপ্রিল থেকেই পুরোপুরি বাস্তবায়ন করতে চাই।অর্থাৎ আগামী ১ এপ্রিল থেকে দেশে সম্প্রচারিত বিদেশি চ্যানেলে কোনও বিজ্ঞাপন দেখানো যাবে না। একেবারে বিজ্ঞাপন ছাড়াই প্রোগ্রাম প্রচার করতে হবে।ড. হাছান মাহমুদ হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, নির্দেশনা দেয়ার পরও যদি বিদেশি চ্যানেল ক্লিনফিড (বিজ্ঞাপন ছাড়া) না দেখানো হয়, তবে আগামী ১ এপ্রিল থেকে কঠোর ব্যবস্থা নেবে সরকার।তিনি টেলিভিশনে বিদ্যমান সমস্যার কথা ইঙ্গিত করে বলেন,‘টিভিশিল্পকে সুরক্ষা দিতে আসুন সবাই একযোগে কাজ করি।’অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জিটিভির প্রধান সম্পাদক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা। তিনি তার প্রবন্ধে বর্তমানে বেসরকারি টেলিভিশনগুলো নানা সংকটে রয়েছে বলে উল্লেখ করেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সম্প্রচার সাংবাদিক কেন্দ্রের চেয়ারম্যান রেজোয়ানুল হক। সংগঠনটির সদস্যসচিব শাকিল আহমেদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও বক্তৃতা দেন ডিবিসি টেলিভিশনের চেয়ারম্যান ইকবাল সোবহান চৌধুরী, চ্যানেল ২৪–এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সমকালের প্রকাশক এ কে আজাদ, বেঙ্গল গ্রুপ লিমিটেডের ভাইস চেয়ারম্যান আফসার খায়ের, স্কাই এন্টারটেইনমেন্ট নেটওয়ার্কের নুরুল আলম প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email
FacebookTwitter