তেঁতুলিয়া সীমান্তে বিএসএফ-বিজিবি গোলাগুলি

অনলাইনঃ
পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার ভজনপুর সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী-বিএসএফের গুলিবর্ষণ থেকে অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-বিজিবির টহল দল। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সীমান্তে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

এ বিষয়ে বিএসএফের কাছে জবাব চাইতে বিজিবির পক্ষ থেকে পতাকা বৈঠকের জন্য আহ্বান করা হলেও কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

বিজিবি সূত্রে জানা গেছে, সোমবার মধ্যরাতে তেঁতুলিয়া উপজেলার ভজনপুর সীমান্তের ৪২৯নং মেইন পিলার ও সাব-পিলার ৩ এলাকায় গুলিবর্ষণে এই ঘটনা ঘটে।

বিজিবি কর্মকর্তারা জানান, সোমবার দিবাগত মধ্য রাতে ভজনপুর সীমান্তের ওই এলাকায় গরু চোরাচালান হচ্ছে এমন খবরে ভজনপুর বিওপি ক্যাম্পের সদস্যরা অবস্থান নেয়। এ সময় হঠাৎ ভারতের ৯৪ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের অমৃকানগর ক্যাম্পের সদস্যরা বাংলাদেশের দিকে তাক করে গুলিবর্ষণ করতে থাকে।

গুলি থেকে বিজিবির টহলরত সদস্যরা অল্পের জন্য রক্ষা পায়। পরে সীমান্ত এলাকার লোকজনকে সীমান্তের শূন্য রেখায় না যাওয়ার জন্য সতর্ক করে দেন।

এসময় বাংলাদেশের ১০০ গজ ভেতরে একটি ভারতীয় গরু আটক করে বিজিবি।

গুলিবর্ষণের সময়েই বিজিবির পক্ষ থেকে বিএসএফের সঙ্গে যোগাযোগ করে গুলিবর্ষণ বন্ধের জন্য অনুরোধ করা হয়।

মঙ্গলবার সকালে বিএসএফের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বিজিবি সদস্যরা ওই এলাকায় গেলে জানতে পারে রাতে বিএসএফের গুলিতে ভারতীয় কাঁটাতারের অভ্যন্তরে একজন ভারতীয় নাগরিক নিহত হয়েছেন। একটি গরুও মারা গেছে।

পঞ্চগড় ১৮ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মোহাম্মদ এরশাদুল হক বলেন, বিএসএফ সদস্যরা বাংলাদেশের দিকে তাক করে গুলিবর্ষণ করেছে। অল্পের জন্য আমাদের বিজিবির টহলদলের সদস্যরা রক্ষা পেয়েছে।

তিনি বলেন, এ ঘটনায় প্রতিবাদ জানানোর জন্য বিএসএফের সংশ্লিষ্ট ক্যাম্পের কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাদের কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। সীমান্ত এলাকায় বিজিবির টহল জোরদার করা হয়েছে।

উপজেলার ভজনপুর সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী-বিএসএফের গুলিবর্ষণ থেকে অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-বিজিবির টহল দল। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সীমান্তে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

এ বিষয়ে বিএসএফের কাছে জবাব চাইতে বিজিবির পক্ষ থেকে পতাকা বৈঠকের জন্য আহ্বান করা হলেও কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

বিজিবি সূত্রে জানা গেছে, সোমবার মধ্যরাতে তেঁতুলিয়া উপজেলার ভজনপুর সীমান্তের ৪২৯নং মেইন পিলার ও সাব-পিলার ৩ এলাকায় গুলিবর্ষণে এই ঘটনা ঘটে।

বিজিবি কর্মকর্তারা জানান, সোমবার দিবাগত মধ্য রাতে ভজনপুর সীমান্তের ওই এলাকায় গরু চোরাচালান হচ্ছে এমন খবরে ভজনপুর বিওপি ক্যাম্পের সদস্যরা অবস্থান নেয়। এ সময় হঠাৎ ভারতের ৯৪ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের অমৃকানগর ক্যাম্পের সদস্যরা বাংলাদেশের দিকে তাক করে গুলিবর্ষণ করতে থাকে।

গুলি থেকে বিজিবির টহলরত সদস্যরা অল্পের জন্য রক্ষা পায়। পরে সীমান্ত এলাকার লোকজনকে সীমান্তের শূন্য রেখায় না যাওয়ার জন্য সতর্ক করে দেন।

এসময় বাংলাদেশের ১০০ গজ ভেতরে একটি ভারতীয় গরু আটক করে বিজিবি।

গুলিবর্ষণের সময়েই বিজিবির পক্ষ থেকে বিএসএফের সঙ্গে যোগাযোগ করে গুলিবর্ষণ বন্ধের জন্য অনুরোধ করা হয়।

মঙ্গলবার সকালে বিএসএফের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বিজিবি সদস্যরা ওই এলাকায় গেলে জানতে পারে রাতে বিএসএফের গুলিতে ভারতীয় কাঁটাতারের অভ্যন্তরে একজন ভারতীয় নাগরিক নিহত হয়েছেন। একটি গরুও মারা গেছে।

পঞ্চগড় ১৮ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মোহাম্মদ এরশাদুল হক বলেন, বিএসএফ সদস্যরা বাংলাদেশের দিকে তাক করে গুলিবর্ষণ করেছে। অল্পের জন্য আমাদের বিজিবির টহলদলের সদস্যরা রক্ষা পেয়েছে।

তিনি বলেন, এ ঘটনায় প্রতিবাদ জানানোর জন্য বিএসএফের সংশ্লিষ্ট ক্যাম্পের কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাদের কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। সীমান্ত এলাকায় বিজিবির টহল জোরদার করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
FacebookTwitter